এক যুগ’র অপেক্ষার অবসান

এক যুগ’র অপেক্ষার অবসান

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

এক যুগ পর ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) উদ্বোধিত হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে উদ্বোধন হওয়া উত্তরার কাওলা থেকে ফার্মগেট পর্যন্ত ১৩ টি সংযোগ সড়ক দিয়ে যান চলাচল শুরু করবে রবিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকাল ছয়টা থেকে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিমানবন্দরের কাওলা থেকে ১০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ফার্মগেট আসতে সময় লাগবে ১০ মিনিট।

এক্সপ্রেসওয়েতে গাড়ির সর্বোচ্চ গতিসীমা থাকবে ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটার।  ফলে এ পথ পাড়ি দিতে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় নষ্ট হবে না কর্মব্যস্ত নগরবাসীর।

তবে পরিকল্পনাবিদেরা বলছেন, একদিকে যেমন তাড়াতাড়ি এয়ারপোর্ট থেকে ঢাকায় আসা যাবে তেমনি ঢাকায় নামার পর এই গাড়িগুলো যানজটে পড়বে। আংশিক উদ্বোধনের ফলে যে গাড়িগুলো চট্টগ্রাম রোডে যেত সেগুলো একই ভাবে এখন ঢাকায় নেমে যানজট তৈরি করে ঢাকা ছাড়বে।

এক্সপ্রেসওয়ের ওপর দিয়ে থ্রি-হুইলার, মটর বাইক, বাই সাইকেল, পথচারী চলাচল করতে পারবে না। কোথাও থেমে ছবি তোলা যাবে না।  এক্সপ্রেসওয়ে’তে কেবলমাত্র চলতে চার চাকা কিংবা এর অধিক চাকার বাস, ট্রাক ও প্রাইভেট কার।

বিভিন্ন বাহনের টোল হার 

চার ক্যাটাগরিতে টোল আদায় হবে। ক্যাটাগরি-১ এ কার, ট্যাক্সি, জিপ, স্পোর্টস ইউটিলিটি ভেহিক্যাল, মাইক্রোবাস (১৬ সিটের কম) এবং হালকা ট্রাক (৩ টনের কম) ৮০ টাকা, ক্যাটাগরি-২ এ মাঝারি ট্রাক (৬ চাকা পর্যন্ত) ৩২০ টাকা, ক্যাটাগরি-৩ এ ট্রাক (৬ চাকার বেশি) ৪০০ টাকা, ক্যাটাগরি-৪ এ সব ধরনের বাস (১৬ সিট বা তার বেশি) ১৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

কোথায় কোন র‍্যাম্প 

বর্তমানে প্রকল্পের হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের দক্ষিণে কাওলা থেকে ফার্মগেট পর্যন্ত অংশ যান চলাচলে জন্য প্রস্তুত হয়েছে। এ অংশের মেইন লাইনের দৈর্ঘ্য ১১ দশমিক ৫ কিলোমিটার এবং র‍্যাম্পের দৈর্ঘ্য ১১ কিলোমিটার। র‍্যাম্পসহ মোট দৈর্ঘ্য ২২ দশমিক ৫ কিলোমিটার। এ অংশে ওঠা নামার জন্য মোট ১৫ টি র‍্যাম্প  থাকবে। এর মধ্যে এয়ারপোর্ট দুইটি , কুড়িল তিনটি, বনানী চারটি, মহাখালী তিনটি, বিজয়স্বরণী দুইটি ও ফার্মগেট একটি।  এর মধ্যে ১৩ টি র‍্যাম্প যান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হবে। উত্তর হতে দক্ষিণ অভিমুখী যানবাহন ওঠবে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের দক্ষিণে কাওলা; প্রগতি সরণি এবং বিমানবন্দর সড়কের আর্মি গলফ ক্লাব হতে আর নামবে বনানী কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ; মহাখালী বাস টার্মিনাল এর সামনে; ফার্মগেট প্রান্তে ইন্দিরা রোডের পার্শ্বে। দক্ষিণ হতে উত্তর অভিমুখী যানবাহন উঠবে বিজয় সরণি ওভারপাসের উত্তর এবং দক্ষিণ লেন; বনানী রেল স্টেশনের সামনে। আর নামবে মহাখালী বাস টার্মিনাল এর সামনে; বনানী কামাল আতাতুর্ক অ্যাভিনিউ এর সামনে বিমানবন্দর সড়ক, কুড়িল বিশ্বরোড এবং বিমানবন্দর ৩য় টার্মিনাল এর সামনে। তবে মহাখলীততে একটি ওঠার র‍্যাম্প ও বনানীতে সড়ক ভবনের পাশের ওঠার র‍্যাম্প আপাতত বন্ধ থাকছে।

প্রকল্পটি নির্মাণের সুবিধার্থে তিনটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। এয়ারপোর্ট-বনানী রেলস্টেশন পর্যন্ত। বনানী রেলস্টেশন-মগবাজার পর্যন্ত। মগবাজার-চিটাগাং রোডের কুতুবখালী পর্যন্ত। উত্তরাঞ্চল থেকে আসা যানবাহনগুলো ঢাকাকে পাশ কাটিয়ে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যেতে পদ্মা সেতুগামী বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়ে’তে সরাসরি ওঠে যাবে। অন্যরুটে দিয়ে যাবে চট্টগ্রাম ও সিলেটে।

ঢাকা এক্সপ্রেসওয়ের প্রকল্প পরিচালক এ এইচ এম এস আকতার  বলেন, যে অংশটুকু উদ্বোধন হচ্ছে সেখানে সবধরনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বাকি অংশের কাজও চলছে। সবমিলিয়ে ৬৫ শতাংশের ওপরে কাজ হয়েছে। ঢাকা শহরের মধ্যে দিয়ে এমন প্রকল্প বাস্তবায়নে বিভিন্ন ধরণের সমস্যা থাকে। তবে সেসব সমস্যা কাটিয়ে তুলে কাজ হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ২০১১ সালের ১৯ জানুয়ারি এ প্রকল্পের প্রথম চুক্তি সই করা হয়। এই প্রকল্পের মেয়াদ ধরা হয়েছে ২০১১ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত।  প্রকল্পের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ফার্স্ট ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে কোম্পানি লিমিটেডের সঙ্গে  বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের ১৫ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে সংশোধিত চুক্তি সই হয়। প্রকল্পটি থাইল্যান্ড ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ইটালিয়ান থাই ডেভেলপমেন্ট পাবলিক কোম্পানি লিমিটেড ৫১ শতাংশ এবং চায়না ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান শোনডং ইন্টারন্যাশনাল ইকোনোমিক গ্র্যান্ড টেকনিক্যাল কো-অপারেশন গ্রুপ ৩৪ শতাংশ ও সিনোহাইড্রো কর্পোরেশন লিমিটেড ১৫ শতাংশ যৌথ উদ্যোগে নির্মিত হচ্ছে। প্রকল্পের মূল দৈর্ঘ্য ১৯ দশমিমক ৭৬ কিলোমিটার। র‍্যাম্পসহ মোট দৈর্ঘ্য ৪৬ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার।

প্রকল্পের মোট ব্যয় ৮৯৪০ কোটি টাকা যার ২৭ শতাংশ বাংলাদেশ সরকার এবং বাকি অংশ ভিজিএফ হিসেবে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানকে প্রদান করবে। তবে  ভূমি অধিগ্রহণ, নকশা বদল, অর্থ সংস্থানের জটিলতায় ৪ বার সময় বৃদ্ধির ফলে ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৩ হাজার ৮৫৮ কোটি টাকায়।

editor

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *